পিএসসি-সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ৪১তম বিসিএসের প্রিলির ফলাফলের যে বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল, সেখানে বিসিএসের বিভিন্ন পরীক্ষা কীভাবে এগিয়ে নেওয়া যায়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। একই সঙ্গে ৪৩তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি ও ৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার সময় নিয়েও আলোচনা হয়েছে। একাধিক সদস্য প্রথম আলোকে জানান, করোনাভাইরাসের টিকা নেওয়ার পর পরিস্থিতির উন্নতি হলেই আটকে থাকা পরীক্ষা শেষ করতে চায় পিএসসি। নিয়োগের সময় কমিয়ে আনতে হলে এটিই সহজ সমাধান বলে মনে করেন তাঁরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিএসসির চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘৪১তম বিসিএস পরীক্ষার লিখিত পরীক্ষার জন্য আমরা নভেম্বর মাসকে ধরেছি। এ ছাড়া ৪৩তম বিসিএসের জন্য অক্টোবর মাসকে ধরা হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে এই সময়েই এই দুই বিসিএসের পরীক্ষা নেওয়ার পরিকল্পনা আছে।’

৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফল গত রোববার প্রকাশ করেছে পিএসসি। এতে পাস করেছেন ২১ হাজার ৫৬ জন। এই প্রার্থীরা লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবেন। পরীক্ষার সময়সূচি পরে জানানো হবে।

৪১তম বিসিএস পরীক্ষার লিখিত পরীক্ষার জন্য আমরা নভেম্বর মাসকে ধরেছি। এ ছাড়া ৪৩তম বিসিএসের জন্য অক্টোবর মাসকে ধরা হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে এই সময়েই এই দুই বিসিএসের পরীক্ষা নেওয়ার পরিকল্পনা আছে।

পিএসসির চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন

২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর ৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। পিএসসির চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন বলেন, ৪১তম বিসিএস পরীক্ষা দেওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন ৪ লাখ ৪ হাজার ৫১৩ জন। এর মধ্যে এ বছরের ১৯ মার্চ প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নেন ৩ লাখ ৪ হাজার ৯০৭ জন। উপস্থিতির হার ছিল ৭৫ দশমিক ৩৮। এতে বিভিন্ন পদে ২ হাজার ১৩৫ জন ক্যাডার কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হবে।

এদিকে ৪৩তম বিসিএসের আবেদন কয়েক দফা বাড়ানোর পর গত জুলাইয়ে এতে আবেদনের প্রক্রিয়া শেষ করে পিএসসি। ৪৩তম বিসিএসের আবেদন করেন চার লাখের বেশি প্রার্থী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *